You are currently viewing ১৭টি লাভজনক গ্রামে ব্যবসার আইডিয়া | 2021 [ Updated ]
গ্রামে ব্যবসার আইডিয়া

১৭টি লাভজনক গ্রামে ব্যবসার আইডিয়া | 2021 [ Updated ]

গ্রামে কি কি ব্যবসা করা যায় এমন  অনেক প্রশ্ন  আমাদের  অনেকের মাথায় ঘোরপাক খায় | অনেকে গ্রামে ব্যবসা করার জন্য নানান ধরনের গ্রামে ব্যবসার আইডিয়া খুঁজে থাকে |  কিন্তু গ্রামে সহজে করা যায় এবং শহর থেকে সেইসব ব্যবসা গ্রামে তুলনামূলক লাভজনক তা মাথায় আসেনা | 

অনেক সময়ই গ্রামের কাঁচামালের সহজলভ্যতা ও সস্তা শ্রম মূল্যের কারণে গ্রামে ব্যবসা করে ভালো লাভবান হওয়া যায় |  এছাড়া গ্রামের দোকান ভাড়া, ও যাতায়াত খরচ শহরের চেয়ে তুলনামূলক অনেক কম হয় |  যা পণ্যের মূল্য কম হয় এবং ক্রেতা পণ্য কিনতে আগ্রহী হয়, যার ফলে বিক্রি বেশি হয় এবং দিনশেষে ভালো ইনকাম হয় |

তবে গ্রামে ছোট ও মাঝারি ধরনের ব্যবসায় গুলো বেশি উপযোগী | ঠিক তেমন কিছু গ্রামে ব্যবসার আইডিয়া  নিয়ে আজকে আপনাদের সাথে আলোচনা করব ।

 

Table of Contents

১/গ্রামে কাঁচামালের ব্যবসা । গ্রামে ব্যবসার আইডিয়া |

 

vagetable_business
vagetable business

 

 বাংলাদেশের প্রায় সব বড় বড় শহরগুলোতে কাঁচামালের যোগান দিয়ে থাকে গ্রামগুলো | গ্রাম থেকে আসা কাঁচামাল এইসব শহরে বিক্রি করা হয় | বিভিন্ন পাইকার ব্যবসায়ীরা গ্রাম থেকে কাঁচামাল ক্রয় করে নিয়ে আসে শহরে  এবং তা ক্রেতাদের নিকট খুচরা দামে বিক্রয় করে | আপনি চাইলে আপনার গ্রামের কৃষকদের সাথে ভালো সম্পর্ক রেখে তাদের কাঁচামাল সংগ্রহ করে গ্রামের বাজারে খুচরা দামে বিক্রয় করতে পারেন |

 

এছাড়াও আপনি শহরের কোন পাইকার ব্যবসায়ীর সাথে যোগাযোগ করতে পারেন এবং তাদের কাছে কাঁচামাল বিক্রি করতে পারেন | এতে করে সব কাঁচামাল আপনি একসাথে পাইকারি ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি করে দিতে পারবেন | এবং কাঁচামাল যেহেতু আমাদের জীবনের দৈনন্দিন প্রয়োজনীয় একটি খাদ্যবস্তু তাই এটির চাহিদা সারাবছর সমানতালে চলবে | ভালোভাবে কৃষকদের সাথে ও  পাইকারি ব্যবসায়ীদের সাথে  ভালো সম্পর্ক বজায় রাখলে গ্রামে ব্যবসার আইডিয়া ও এই ব্যবসা থেকে খুব অল্প দিনেই ভালো অর্থ উপার্জন করা যাবে | 

২/গ্রামে হস্তশিল্পের ব্যবসা | Handicraft Business

 

Handicraft_business
Handicraft_business

 

 

হস্তশিল্প এর ব্যবসা অনেক পূর্ব থেকেই একটি লাভজনক গ্রামে ব্যবসার আইডিয়া  | এবং এটি একটি পুরাতন ব্যবসা | বর্তমানে শহরেও হস্তশিল্পের চাহিদা অতীতের চেয়ে অনেক বেশি | আপনি চাইলে হস্তশিল্পের মাধ্যমেও  গ্রামে ব্যবসা শুরু করতে পারেন |  গ্রামে আপনি অনেক ধরনের হস্তশিল্প তৈরির কারিগর পাবেন | তাদের দিয়ে আপনি   বেত,শন,তালপাতা প্লাস্টিক এবং পুঁথির  তৈরি নানা ধরনের জিনিসপত্র বানিয়ে নিতে পারেন ।

 

বগুড়া শেরপুর উপজেলার চারটি ইউনিয়নে গ্রামে প্রায় পাঁচ হাজার নারী হস্তশিল্পের কাজ করছে [ তথ্যসূত্র : সময় টিভি ] । এছাড়াও মেহেরপুরের পাটের তৈরি হস্তশিল্পের পন্য আজকাল  ইউরোপে ও যাচ্ছে । তাই বলা যায় একটু প্রশিক্ষণ নিয়ে এবং দক্ষ কারিগর দ্বারা  হস্তশিল্প ব্যবসা করতে পারলে দারুন লাভবান হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে ।

 

৩/ গরু ছাগল হাঁস মুরগি ও কবুতর পালন ব্যবসা | Cow Farm Business

 

 

Cow_farms_business
Cow_farms_business

 

গরু-ছাগল, হাঁস-মুরগি ও কবুতর পালনের ব্যবসা কোন নতুন গ্রামীণ ব্যবসার  নয় । অনেক পুরনো দিন থেকে এই ব্যবসা চলে আসছে। গরু ছাগল হাঁস মুরগি এর বর্তমানে প্রচুর চাহিদা রয়েছে । এবং বাণিজ্যিকভাবে গরু ছাগল হাঁস মুরগির খামার করতে পারলে  তাতে বেশ লাভবান হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে । বিভিন্ন ধরনের হোটেল-রেস্তোরাঁয় আজকাল মুরগি ,গরু-ছাগল  এর  অনেক চাহিদা রয়েছে ।

 

লক্ষ্য করা যায় প্রতিদিনই অনেকগুলো গরু ছাগল জবাই করা হচ্ছে এইসব হোটেল রেস্তোরাঁ  ব্যবসা এর জন্য । এছাড়াও  প্রোল্টি মুরগি এর বর্তমানে প্রচুর চাহিদা । তাই গ্রামে স্বল্প পরিসরে জায়গা নিয়ে সেখানে পোল্টির ব্যবসা ও পল্টি খামার গড়ে তুলতে পারলে অল্পদিনেই ভালো লাভবান হওয়া যাবে ।

তবে এই ব্যবসা গুলো করার জন্য অবশ্যই পূর্বে অভিজ্ঞতা অথবা প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর থেকে প্রশিক্ষণ নিয়ে ব্যবসা শুরু করা সবচেয়ে নিরাপদ হবে।

কারণ গরু ছাগল হাঁস মুরগি কবুতর এগুলো যেকোনো মুহূর্তে অসুস্থ হয়ে পড়তে পারে । তখন যদি  রোগ প্রতিরোধের সঠিক জ্ঞান জানা না থাকে তাহলে পুরো ব্যবসায়টি লস হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি ।

 

৪/কোয়েল পাখি পালন ব্যবসা । গ্রামে ব্যবসার আইডিয়া Cyol Business

 

খুবই স্বল্প বিনিয়োগে কোয়েল পাখি পালনের ব্যবসাটি শুরু করা যেতে পারে। অনেকেই আজকাল কোয়েল পাখি পালনের ব্যবসা করে স্বাবলম্বী হচ্ছেন । কোয়েল পাখির মাংস ও ডিম এর প্রচুর চাহিদা রয়েছে । বাণিজ্যিকভাবে যদি আপনি কোয়েল পাখি ব্যবসা করতে পারেন তাহলে আপনার ভাগ্য চাকা ঘুরে যেতে পারে ।

 

কোয়েল পাখি সাধারণত এক মাসের মধ্যেই বড় হয়ে যায় এবং তা খাওয়ার উপযোগী হয়ে ওঠে । এবং এটি সাধারণত ৬ থেকে ৮ সপ্তাহ এরমধ্যে ডিম দেওয়া শুরু করে । তাই আপনার যদি অল্প সময়ে আয় করার চিন্তাভাবনা থাকে তাহলে একটু প্রশিক্ষণ নিয়ে কোয়েল পাখি পালন ব্যবসা শুরু করে দিতে পারেন ।

 

৫/ গ্রামে মোবাইল  লোডিং ও মেরামতের ব্যবসা | Mobile Recharge Business

 

 বর্তমানে গ্রামগুলো শহরের সাথে দিনদিন তাল মিলিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে । যার ছোঁয়া লক্ষ করা যায় গ্রামে প্রতিটি মানুষের হাতে হাতে স্মার্টফোন ও মোবাইল ফোন ধারা । গ্রামের মানুষরা এখন মোবাইল ফোন দ্বারা শহরের প্রিয়জনদের সাথে যোগাযোগ করতে পারছে । আর মোবাইল ফোন যেহেতু একটি ইলেকট্রনিক যন্ত্র , তাই এটি যেকোন মুহূর্তে নষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে  যার ফলে এটি মেরামত করার জন্য প্রয়োজন হয়  মোবাইল মেরামতের দোকান ।

 

তাই আপনি যদি একটু মোবাইল মেরামত কাজ শিখে নিজেকে দক্ষ করে আপনার গ্রামে বাজারে  একটি দোকান নিতে পারেন তাহলে এই গ্রামে ব্যবসার আইডিয়া থেকে আপনি অনেক ভালো ইনকাম করতে পারবেন । এছাড়াও মোবাইল মেরামত করার পাশাপাশি আপনি মোবাইলের বিভিন্ন যন্ত্রপাতি ও পার্টস বিক্রি করতে পারবেন । যেমন মোবাইল এর চার্জার, হেডফোন, ব্যাটারি, ইত্যাদি ।

 

এর পাশাপাশি আপনি আপনার মোবাইলের দোকানে বিভিন্ন ধরনের মোবাইলে  টাকা রিচার্জ  করে মোবাইল সিম কোম্পানিগুলো থেকে কমিশনে টাকা লাভ করতে পারবেন । মোবাইল সিম কোম্পানিগুলো সাধারণত ১০০০ টাকায় ২৭ -২৮ টাকা কমিশন দিয়ে থাকে । এছাড়াও প্রতিবার রিচার্জে ১ টাকা  ও বিভিন্ন ধরনের অফার এর মাধ্যমে কমিশন আদায় করে নিতে পারবেন । তাই বলা যায় গ্রামে ব্যবসার আইডিয়া ও গ্রামে মোবাইল লোডিং  ও মেরামতের ব্যবসা কম ঝুঁকিপূর্ণ  ও অত্যন্ত লাভজনক একটি ব্যবসা হিসেবে গণ্য । 

 

সতর্কতাঃ : মোবাইল এ টাকা রিচার্জ করার সময় কমপক্ষে দুইবার মোবাইল নাম্বারটি যাচাই করে  নিবেন । অন্যতায় লস হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে । 

 

৬/  গ্রামে কাপড় সেলাইয়ের কাজ অথবা দর্জির ব্যবসা | Tailor Business

 

Tailor_business
Tailor_business

 

কাপড় সেলাই এর ব্যবসা অথবা দর্জির ব্যবসা ও একটি অনেক  পুরাতন গ্রামে ব্যবসার আইডিয়া । আপনি যদি কাপড় সেলাইয়ের কাজ ভালোভাবে শিখে নিতে পারেন এবং সুন্দর সুন্দর ডিজাইনের কাপড় সেলাই করতে পারেন তাহলে গ্রামে একটি দোকান খুলে কাপড় সেলাইয়ের কাজ বা দর্জির ব্যবসা করতে পারেন । এছাড়াও আপনি যদি দোকান না পেয়ে থাকেন তাহলে আপনি আপনার বাসায় থেকেও গ্রামে কাপড় সেলাইয়ের কাজ অথবা দর্জির ব্যবসাটি চালিয়ে যেতে পারবেন ।

 

আপনার কাপড় সেলাই  ও ডিজাইন যদি সুন্দর হয়ে থাকে অনেক মানুষ আপনার বাসায় এসেই অর্ডার দিয়ে যাবে । তাই গ্রামে ব্যবসার জন্য কাপড় সেলাইয়ের কাজ ও  দর্জির ব্যবসা ও একটি লাভজনক গ্রামীণ ব্যবসার আইডিয়া।

 

এই আর্টিকেলগুলোও আপনার প্রয়োজন হতে পারে ।

১/বেলা ফুরাবার আগে পিডিএফ বই ।

২/প্যারাডেক্মিকাল সাজিদ পিডিএফ বই ।

৩/ SEO কিভাবে শিখবো ।

৬/উল্লেখযোগ্য ২৫ নবীদের জীবন কাহিনী ।

৭/আসহাবে কাহাফ ও গুহাবাসীর ঘটনা ।

১০/৮টি সেরা পাইকারি ব্যবসার আইডিয়া ।

১১/১ লাখ টাকায় ব্যবসার ২৫টি লাভজনক বিজনেস আইডিয়া

৭/ গ্রামে উপহারসামগ্রীর দোকান |Gift Shop Business

 

গ্রাম বলুন আর শহর বলুন সব জায়গাতেই মানুষ তার প্রিয়জনের জন্য  বিশেষ দিনগুলোতে উপহার দিয়ে থাকে । তাই গ্রামে বাজারে  একটি দোকান খুলে সেখানে বিভিন্ন ধরনের উপহার-সামগ্রী পণ্য বিক্রয় করতে পারেন । উপহারসামগ্রীর পাশাপাশি আপনি চাইলে ঘর সাজানোর সুন্দর সুন্দর আর্টিফিশিয়াল ফুল ও গাছ বিক্রয় করতে পারেন । 

 

৮/গ্রামে ফার্মেসি ব্যবসা | Pharmecy Business

 

Pharmacy_business
Pharmacy_business

 

গ্রামে ফার্মেসি ব্যবসা অত্যন্ত একটি লাভজনক গ্রামে ব্যবসার আইডিয়া। প্রতিদিন আমাদের নানান ধরনের  ছোটখাটো অসুখ-বিসুখ হয়ে থাকে, যার জন্য আমাদের শহরে যাওয়ার প্রয়োজন হয় কিন্তু গ্রামে যদি একটি ফার্মেসি দোকান থাকে তাহলে গ্রামের মানুষ ফার্মেসি থেকে তাদের প্রয়োজনীয় ঔষধ সামগ্রী ক্রয় করে নিতে পারবে ।

 

ফার্মেসি এর পাশাপাশি আপনি যদি একজন ভাল এমবিবিএস ডাক্তার এর সাথে যোগাযোগ করতে পারেন এবং প্রতি সপ্তাহে এক বা দুই দিনের জন্য তাকে আনতে পারেন । তাহলে আপনার গ্রামে ফার্মেসি ব্যবসা আরো জমজমাট হয়ে উঠবে, এবং এতে গ্রামবাসীর ও অনেক উপকার হবে ।

 

গ্রামবাসীকে আর কষ্ট করে শহরে পাড়ি জমাতে হবে না । তবে অবশ্যই ফার্মেসি ব্যবসা শুরু করার পূর্বে ফার্মেসি এর উপরে প্রশিক্ষন নিতে হবে অথবা অন্য  কোন ফার্মেসি দোকানে কিছুদিন চাকরি করে ফার্মেসি ব্যবসা সম্পর্কে ভালোভাবে শিখে নিতে হবে ।

 

৯/  গ্রামে ভালো মুদির দোকান ব্যবসা | Grocery Shop Business

 

গ্রামে মুদির দোকান অনেক দেখতে পাওয়া যাবে কিন্তু দোকানগুলো এই আছে এই নেই এমন অবস্থা । গ্রামে যদি একটি ভাল মানের মুদির দোকান ব্যবসা শুরু করা যায় তাহলে মুদি দোকান গ্রামে ব্যবসার আইডিয়া থেকে ভালো লাভবান হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে । গ্রামের মানুষ কি কি পণ্য এর চাহিদা রয়েছে তা তালিকা করে রাখবেন ।  এবং তা দোকানে সময়মতো তুলে রাখবেন । এর ফলে ক্রেতা বারবার আপনার দোকানে আসবে ।

 

যার ফলে নিয়মিতই আপনার দোকানে বিক্রি বাড়বে । দৈনন্দিন জীবনে আমাদের অনেক মুদি পণ্যের প্রয়োজন হয়  যেমন : চাল, ডাল, মরিচ, মসলা, আলু, লবণ, চিনি ইত্যাদি ধরনের পণ্য আমাদের মুদি দোকান থেকে ক্রয় করতে হয় । তাই ভালো মানের পণ্য ও সকল ধরনের পণ্য যদি দোকানে রাখা যায় তাহলে গ্রামে মুদির দোকান ব্যবসা করে দারুণ লাভবান হওয়া যাবে । তবে মুদি দোকান করার ক্ষেত্রে বাকি দেওয়া থেকে সতর্ক থাকতে হবে । 

 

১০/গ্রামে স্টেশনারি লাইব্রেরী ব্যবসা |Library Business

 

Library_business
Library_business

 

 

সাধারণত গ্রামগুলোতে স্টেশনারি ও লাইব্রেরী দোকান বা ব্যবসা খুব কমই লক্ষ করা যায় । কিন্তু গ্রামে অনেক প্রাথমিক বিদ্যালয়,  মাদ্রাসা রয়েছে এবং বর্তমানে বেশিরভাগ গ্রামে উচ্চশিক্ষা বিদ্যালয় ও রয়েছে । তাই দেখা যায় বেশিরভাগ সময় গ্রামে শিক্ষার্থীদের  প্রয়োজনীয় বই ,খাতা , পেন্সিল,কলম,  ইত্যাদি জন্য তাদের শহরে আসতে হয় ।

 

তাই গ্রামে যদি স্টেশনারি অথবা লাইব্রেরী দোকান ব্যবসা করা হয় তাহলে এই গ্রামে ব্যবসার আইডিয়া থেকে লাভ হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি । এছাড়াও স্টেশনারি ও লাইব্রেরী ব্যবসা প্রায়  ২৫%  লাভের অংশ পাওয়া যায় । এবং পণ্যগুলো পচনশীল না হওয়ায় ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম ।

 

তাই আজই শুরু করে দিন যদি আপনার গ্রামে তেমন ভালো কোন স্টেশনারি ও লাইব্রেরী দোকান বা ব্যবসা থেকে না থাকে ।

 

১১/ গ্রামে বসেই ব্লগিং করে আয় করুন | Earn Money By Blogging 

 

ব্লগিং এমন একটি কাজ  বা পেশা যেটি আপনি পৃথিবীর যে কোন প্রান্ত থেকে করতে পারবেন । আপনি গ্রামে  থাকেন নাকি শহরে অথবা আপনার ভৌগলিক অবস্থান এর জন্য কখনো বাধা হয়ে থাকতে পারবে নাহ। যদি না আপনার এলাকায় ইন্টারনেট পৌঁছে না থাকে । বাংলাদেশের এখন প্রায় প্রত্যেকটি গ্রাম ও শহরে ইন্টারনেট রয়েছে ।

 

আপনার মোবাইল ফোনটি দ্বারাও আপনি চাইলে গ্রামে বসে ব্লগিং করে অনলাইন থেকে অর্থ আয় করতে পারেন। অনলাইন থেকে সবচেয়ে বিশ্বস্ত একটি উপায় হচ্ছে ব্লগিং করে আয় ।

একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে সে ওয়েবসাইটে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে লেখালেখি করার মাধ্যমে ট্রাফিক জেনারেট করে বিভিন্ন ধরনের বিজ্ঞাপন  দেখিয়ে ব্লগিং করে আয় করা যেতে পারে । ব্লগিং সম্পর্কে আরো বিস্তারিত জানতে এই আর্টিকেলটি পড়ুন।

 

১২/  গ্রামে বিউটি পার্লার ব্যবসা | Beauty Parlor Business

 

 আপনি যদি একটি স্মার্ট ব্যবসা করতে চান গ্রামে থেকেই তাহলে আপনি গ্রামে বিউটি পার্লার ব্যবসা করতে পারেন ।  সাধারণত গ্রামে দেখা যায় কোন বিয়ের অনুষ্ঠানে মেয়েরা শহর থেকে বিউটি পার্লার কর্মীদেরকে ভাড়া করে নিয়ে আসে সাজিয়ে নেয় । এতে করে যাতায়াত খরচ ও বিউটি পার্লার কর্মীর ভাড়া আরো বেড়ে যায় ।

 

তাই আপনি চাইলে আপনার এলাকায় একটি বিউটি পার্লার দোকান দিয়ে অথবা বাসা থেকেই এই ব্যবসা করতে পারেন । বিউটি পার্লার ব্যবসা করার পূর্বে অবশ্যই আপনাকে এই কাজটি শিখে নিতে হবে ।

 

১৩/ গ্রামে সমন্বিত মাছ ও হাঁস পালন ব্যবসা | Fish Farming

 

 মাছ ও হাঁস অনেকেই পালন করে থাকে তবে মাছ ও হাঁস একসাথে পালন করলে অনেক খরচ কমিয়ে আনা যায় ।  এই ব্যবসা করার জন্য আপনার একটি জলাশয়ে প্রয়োজন হবে এবং সে জলায়শয়ের উপরে মাচাং দিয়ে তৈরি করে হাঁসের জন্য বাসস্থান তৈরি করতে হবে । মাচাং দিয়ে জলের উপর হাঁসের জন্য বাসস্থান তৈরি করার ফলে হাঁস এর  বিষ্ঠা ও পায়খানা গুলো মাছের খাদ্য হিসেবে ব্যবহার হবে ।

যার ফলে আপনার মাছের খাদ্য জন্য খরচ অনেক কমে যাবে । এবং হাঁসগুলো জলাশয় সাঁতার কাটার কারণে আপনার মাছের শরীর দ্রুত বৃদ্ধি পাবে । তাই গ্রামের সমন্বিত মাছ ও হাঁস পালন ব্যবসা একটি ঝুঁকিহীন লাভজনক ব্যবসা ।

 

১৪/কৃষি পণ্যের পাইকারি ও খুচরা ব্যবসা |Wholesale of Agricultural Products

 

সাধারণত বাংলাদেশ গ্রামের অধিকাংশ মানুষই কৃষক এবং তাদের পেশা কৃষি । তা কৃৃষির জন্য প্রয়োজনীয় জরুরি এমন অনেক পণ্য রয়েছে যেমন : স্যার,ফসলের বীজ, কীটনাশক ও বিভিন্ন ধরনের কৃষি যন্ত্রপাতি ইত্যাদি । আপনি চাইলে এগুলোর পাইকারি ও খুচরা ব্যবসা করতে পারেন । আপনি সেসব কীটনাশক ও সার ফসলের বীজ কোম্পানি গুলোর সাথে ডিলারশিপ নিতে পারে । এবং গ্রামে ব্যবসা করে  ভালো অর্থ উপার্জন করতে পারেন ।

 

১৫/ গ্রামের ট্রেনিং সেন্টার ব্যবসা | Training Center  Business

 

গ্রামের ট্রেনিং সেন্টার ব্যবসা ও একটি লাভজনক ব্যবসা হতে পারে । গ্রামের ছেলে মেয়েদেরকে ট্রেনিং সেন্টারের মাধ্যমে আপনি  নানান কিছু শিখাতে পারেন । যেমন : কম্পিউটার ট্রেনিং, হস্তশিল্পের ট্রেনিং, ইংরেজি শিক্ষা ট্রেনিং, আরবি কুরআন শিক্ষা ট্রেনিং, স্বাস্থ্য ও ব্যায়ামাগার ট্রেনিং ইত্যাদি ।  তবে ট্রেনিং সেন্টার ব্যবসা করার জন্য বাজারের মধ্যে দোকান বা জায়গা নিয়ে ট্রেনিং সেন্টার চালু করতে পারলে সবচেয়ে লাভজনক ও বেশি লাভ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে ।

 

তবে ট্রেনিং সেন্টার গুলোর লাভ বা লভ্যাংশ নির্ভর করে ট্রেনিং সেন্টারের সেবার মানের উপর । সেবার মান যত ভালো হবে ট্রেনিং সেন্টার গুলোতে মানুষের আগ্রহ তত বাড়বে । এবং এর ফলে ট্রেনিং সেন্টার থেকে আপনি ভাল অর্থ উপার্জন করতে পারবেন । তাই গ্রামে ব্যবসার আইডিয়া ট্রেনিং সেন্টার ব্যবসা একটি ভালো  ও লাভজনক উদ্যোগ ।

 

১৬/ গ্রামে ওয়াইফাই ও ডিস লাইনের এর ব্যবসা |Wifi Business

 

ওয়াইফাই এর ব্যবসা খুবই লাভজনক  ও চমৎকার একটি ব্যবসা ।  বর্তমানে প্রায় সকল মানুষের হাতের মুঠোয় রয়েছে মোবাইল ফোন । আর মোবাইল ফোন দিয়ে একে অপরের সাথে বর্তমানে ভিডিও কল, ও অডিও, টেক্সট, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে  দেশের খবরা-খবর জানা যায় । এছাড়াও বর্তমানে মহামারী এর কারনে সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান তাদের কার্যক্রম অনলাইন মুখী করে ফেলেছে ।

 

তাই এখন অনলাইনেই তাদের ক্লাস  বা শ্রেণিকক্ষের পাঠ নেওয়া হচ্ছে । এছাড়াও পরীক্ষার রেজাল্ট দেখা, বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির আবেদন করা ছাড়াও দিন দিন  ইন্টারনেটের ব্যবহার বেড়েই যাচ্ছে । তাই ওয়াইফাই এর ব্যবসা গ্রাম এবং শহর সবখানেই একটি লাভজনক ও উপযোগী ব্যবসা । বিশেষ করে গ্রামে নেট সমস্যা বা মোবাইল ডাটা অনেকটা স্লো হওয়ায় ওয়াইফাই এর ব্যবসা লাভবান হওয়ার সম্ভাবনা আরও বেশি ।

 

ওয়াইফাই ব্যবসা করার জন্য একটু পূঁঝি বেশি হতে পারে । ওয়াইফাই ব্যবসা করতে বাংলাদেশে অনেক কোম্পানি ও সরকারিভাবে বিটিসিএল এর মাধ্যমে ওয়াইফাই কানেকশন বা এজেন্ট ডিলার নিয়োগ দিচ্ছে,, আপনি এদের সাথে যোগাযোগ করে ডিলার নিতে পারেন । এবং আপনার ওয়াইফ  এর সংযোগ দিতে পারেন । নিঃসন্দেহে বলা যায়  গ্রামে ওয়াইফাই এর ব্যবসা  একটি লাভজনক ব্যবসা ।

 

ওয়াইফাই ব্যবসা ছাড়াও গ্রামে ডিস লাইনের ব্যবসা ও খুবই লাভজনক একটি ব্যবসা । কিছু বন্ধু-বান্ধব কে সাথে নিয়ে শেয়ারে ডিস লাইনের ব্যবসা শুরু করে দিতে পারেন । 

 

১৭/  আরৎ দিয়ে ব্যবসা | Brocker Business

 

যেহেতু শহরের প্রায় সব কাঁচামাল ওই গ্রাম থেকে আসে  তাই আপনি কাঁচামালের আড়ত দিয়ে ও ব্যবসা করতে পারেন । গ্রামের  কৃষকদের সাথে ভালো সম্পর্ক রেখে শাকসবজি ফলমূল সংগ্রহ করে তা শহরে  পাঠিয়ে  ভালো আয় করতে পারেন । শুধু যে শাকসবজি ফলমূল এর মাধ্যমে আরদ দিয়ে ব্যবসা করবেন তা নয়  কাঁচামাল এর পাশাপাশি আপনি মাছ,, দুধ, ডিম, কলা সহ বিভিন্ন রকমের জিনিস কৃষক হতে সংগ্রহ করে তা শহরে বিভিন্ন জায়গায়   পৌঁছে দিয়ে ভালো অর্থ উপার্জন করতে পারবেন । 

 

গ্রামে ব্যবসার আইডিয়া নিয়ে আজকের লেখা এখানেই শেষ করলাম । গ্রামীণ ব্যবসার আইডিয়া নিয়ে আরও বিভিন্ন ধরনের ব্যবসা রয়েছে । তবে  উক্ত ব্যবসাগুলো আমার কাছে ভালো লাগা এবং লাভবান ব্যবসা মনে হয়েছে ।  আপনাদের কাছে কোন ব্যবসাটি সবচেয়ে ভালো লেগেছে তা  নিচে কমেন্টে জানাতে ভুলবেন না ।

এবং আর্টিকেলটি ভালো লাগলে আপনার ফেসবুক টুইটারে শেয়ার করবেন । এছাড়াও  পাইকারি ব্যবসার আইডিয়া, ও এক লক্ষ টাকার মধ্যে কি কি ব্যবসা করা যায় তা জানতে এই আর্টিকেলগুলো পড়ুন   । ধন্যবাদ

MD Imran hossan

২০১৯ সাল থেকে যুক্ত আছি এই টেকনোলজির দুনিয়ার সাথে । যদিও আমার পড়াশোনা ব্যবসা ও বাণিজ্য নিয়ে । ওয়েবসাইট ডেভেলপ করে দেওয়ার পাশাপাশি বর্তমানে লিখালিখি ও ব্লগিং সেক্টর এর সাথে যুক্ত আছি । নিজের জ্ঞান কে অন্যদের সাথে ভাগাভাগি করে নেওয়ার জন্য প্রতিষ্ঠা করেছি বাংলা-আর্টিকেল ডটকম ওয়েবসাইট । স্বপ্ন দেখছি একটি বিশ্বস্ত ওয়েবসাইট ও আইটি প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার । এবং নিজে যতটুকু জানি তা সবার কাছে ছড়িয়ে দেওয়ার , তাতে যদি কারো শস্য পরিমাণও উপকার হয় তাতেই আমার প্রশান্তি |

This Post Has 8 Comments

Leave a Reply